History in Child Education ॥ শিশু শিক্ষায় ইতিহাস

 শিশু শিক্ষায় ইতিহাস (History in Child Education)
*********************************

 

1. “History is memory of the Nation” উক্তিটি কার ?
উঃ শিক্ষাবিদ ডঃ সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণণ ইতিহাস পাঠের গুরুত্ব সম্পর্কে এই উক্তিটি করেন ।

2. শিক্ষার্থীদের ইতিহাস পড়ানোর লক্ষ্যগুলিকে কয়টি গোত্রে ভাগ করা যায় ?
উঃ শিক্ষার্থীদের ইতিহাস পড়ানোর লক্ষ্যগুলিকে মূলতঃ দুইটি গোত্রে ভাগ করা যায়, যথা – কার্যকরী লক্ষ্য বা উপযোগবাদী লক্ষ্য (Utilitarian Aim) এবং বৌদ্ধিক লক্ষ্য (Intellectual Aim) ।

3. শিক্ষার্থীদের ইতিহাস পড়ানোর প্রধান লক্ষ্যগুলি কিকি ?
উঃ শিক্ষার্থীদের ইতিহাস পড়ানোর প্রধান লক্ষ্যগুলি হলঃ i) সত্যানুসন্ধানে অনুপ্রেরণা প্রদান, ii) দেশপ্রেম জাগরণ ঘটানো, iii) জীবনযাপনের প্রস্তুতি প্রদান, iv) মানবতাবোধ বিকাশ, v) আন্তর্জাতিকতাবাদের বিকাশ, vi) বিভিন্ন মানসিক শক্তির উন্নয়ন, vii) অগ্রগামী দৃষ্টিভঙ্গির বিকাশ, viii) জাতীয়তাবাদী দৃষ্টিভঙ্গির বিকাশ ইত্যাদি ।

4. ইতিহাস কিভাবে শিক্ষার্থীদের সত্যানুসন্ধানে অনুপ্রেরণা প্রদান করে ?
উঃ অতীতের বিভিন্ন ঘটনা পরম্পরা শিক্ষার্থীদের মনে কৌতুহলের উদ্রেক করে । কোন ঘটনা কেন ঘটেছে, তার গুরুত্ব কী ? ইত্যাদি বিষয়গুলি শিক্ষার্থীদের মনে এলেই তারা বিষয়গুলি নিয়ে অনুসন্ধান করতে থাকে এবং প্রকৃত তথ্য খোঁজে । যেমন, শিক্ষার্থীর মনে প্রশ্ন হতেই পারে ‘আমরা স্বাধীনতা দিবস পালন করি কেনো ?’ শিক্ষার্থীদের এই প্রশ্নের যথার্থ উত্তর ইতিহাসের পাতায় রয়েছে । ইতিহাস পাঠের মাধ্যমেই শিক্ষার্থী স্বাধীনতার গুরুত্ব, স্বাধীনতা সংগ্রামীদের আত্মবলিদান, স্বাধীনতার ঐতিহ্য ইত্যাদি বিষয়গুলি সম্পর্কে অনুসন্ধান করতে পারে । অর্থাৎ কোন ঘটনার পিছনে কোন বিষয়গুলি লুকিয়ে রয়েছে তা অনুসন্ধান করতে ইতিহাস পাঠের মাধ্যমে অনুপ্রেরণা মেলে ।

5. ইতিহাস পাঠ কিভাবে দেশপ্রেমের জাগরণ ঘটায় ?
উঃ একটি দেশের একটি নিজস্ব ইতিহাস থাকে, সেখানে দেশের অতীত স্মৃতির প্রগতিশীল ধারাবাহিকতা মুখ্য বিষয় । দেশের অতীত ঐতিহ্য, গৌরব, সংস্কৃতি; দেশ গঠনে দেশ নায়কদের অবদান, বীর নায়কদের কার্যাবলী ইত্যাদি বিষয়গুলি ইতিহাসের মাধ্যমে ব্যক্ত হওয়ায় শিক্ষার্থীর মধ্যে দেশ প্রেমের জাগরণ ঘটে ।

6. ইতিহাস শিক্ষা কিভাবে জীবনযাপনের প্রস্তুতি প্রদানে সহায়তা করে ?
উঃ ইতিহাসের পাতায় পাতায় বিভিন্ন সভ্যতা, সংস্কৃতি, দেশ, মানবগোষ্ঠী ইত্যাদির জীবনযাত্রার বহুবিধ রূপরেখা লিপিবদ্ধ রয়েছে যেগুলি পাঠের মাধ্যমে শিক্ষার্থী সেই সময়ের জীবনযাত্রা সম্পর্কে বিশদে জানতে পারে । ঐতিহাসিক জীবনযাত্রার পদ্ধতি কিভাবে সংশ্লিষ্ট সভ্যতাকে প্রভাবিত করেছিল তা থেকে শিক্ষা নিয়ে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ জীবনের রূপরেখা নির্ধারণ সহজ হয়ে যায় । যেমনঃ তাম্ব্র-প্রস্তর যুগে কৃষিজীবী মানুষের নদী উপত্যকা অঞ্চলে বসতি স্থাপন অনুসরণ করে তার সুবিধা-অসুবিধা সমন্ধে জ্ঞাত হয়ে ভারতে হরপ্পা সভ্যতা তো বটেই এমনকি বর্তমান ভারতেও বিভিন্ন নগরসভ্যতা নদী উপকূলবর্তী অঞ্চলে বিকশিত হয়েছে ।





মিশন জিওগ্রাফি ইন্ডিয়া টেট অনলাইন কোচিং

মিশন জিওগ্রাফি ইন্ডিয়ার তত্বাবধানে আরম্ভ হয়েছে সর্ব স্তরের টেট প্রস্তুতির অনলাইন কোচিং ॥

MGI পরিচালিত MGI TET ONLINE COACHING এর কোর্স গুলি হলঃ

⇓⇓

1. MGI PRIME TET ONLINE COACHING :-

নবম থেকে দ্বাদশ স্তরের সমাজ বিজ্ঞান বিষয়ের টেট পরীক্ষার উপযোগী এই কোর্সটি । এখানে থাকছে TEACHING-LEARNING, BENGALI, ENGLISH, EVALUATION, GEOGRAPHY HISTORY & ENVIRONMENT STUDIES এর PEDAGOGY থেকে 100+ টপিকের পুঙ্খানুপুঙ্খ আলোচনা এবং 30 টি মক টেস্ট ॥


2. MGI UPPER PRIMARY TET ONLINE COACHING :-

ষষ্ঠ থেকে অষ্টম (উচ্চ প্রাথমিক) স্তরের সমাজ বিজ্ঞান বিষয়ের টেট পরীক্ষার উপযোগী এই কোর্সটি । এখানে থাকছে CHILD PSYCHOLOGY, BENGALI, ENGLISH, SOCIAL STUDIES এর PEDAGOGY ও CONTENT থেকে 120+ টপিকের পুঙ্খানুপুঙ্খ আলোচনা এবং 20 টি মক টেস্ট ॥


&


3. MGI PRIMARY TET ONLINE COACHING :-

প্রথম থেকে পঞ্চম (প্রাথমিক) স্তরের টেট পরীক্ষার উপযোগী এই কোর্সটি । এখানে থাকছে CHILD PSYCHOLOGY, BENGALI, ENGLISH, MATHEMATICS & ENVIRONMENT STUDIES এর PEDAGOGY ও CONTENT থেকে 120+ টপিকের পুঙ্খানুপুঙ্খ আলোচনা এবং 20 টি মক টেস্ট ॥

আরো বিশদে জানতে যোগাযোগ করুনঃ 8640890159 নম্বরে ॥





7. ইতিহাস কিভাবে মানবতাবোধের বিকাশ ঘটায় ?
উঃ মানবতাবোধ মানুষের একটি সুপ্ত বৈশিষ্ট্য । মানুষের প্রতি, সমাজের প্রতি মানুষের দ্বায়িত্ববোধের থেকেই মানবতাবোধের বিকাশ ঘটে । ইতিহাস পাঠের মাধ্যমেই বিভিন্ন দেশের, বিভিন্ন সভ্যতার বিভিন্ন মহামানবদের কার্যাবলী সমন্ধে জ্ঞান অর্জন করে শিক্ষার্থীদের মানবতাবোধের জাগরণ ঘটে । যেমনঃ মাদার টেরেজার আত্মত্যাগ এবং সমাজের প্রতি দায়বদ্ধতা ও সেবার ইতিহাস পাঠ করলে মানবতাবোধের প্রকৃষ্ট নিদর্শন পাওয়া যায় । ইতিহাস থেকেই আমরা জানতে পারি কালাশোক থেকে মহামতি অশোকের মানবীয়তা উন্নয়নের ঘটনাপরম্পরা । ধর্মীয় ইতিহাসের প্রেক্ষাপটে রামায়ণের কেন্দ্রীয় চরিত্র শ্রী রামচন্দ্রের ‘রাম রাজ্য’ কার না কাম্য ! অর্থাৎ মানবতাবোধের বিকাশে ইতিহাস পাঠ যে ব্যাপকভাবে প্রভাব ফেলে তা বলাই যায় ।

8. ইতিহাস কিভাবে আন্তর্জাতিকতাবাদের বিকাশ ঘটায় ?
উঃ আন্তর্জাতিকতাবাদ বিশ্বের প্রগতির অন্যতম সূচক । ইতিহাস শুধু কোন বিশেষ একটি জাতির নয়, ইহা সমগ্র মানবজাতির সম্পদ । বিভিন্ন দেশের সভ্যতা, সাহিত্য, বিজ্ঞান, স্থাপত্যকলা, অর্থনৈতিক কার্যাবলীর প্রগতির ধারাবাহিকতা আমরা ইতিহাস পড়ে জানতে পারি যা থেকে সেই সমস্ত দেশের সমন্ধে আমাদের জ্ঞান বৃদ্ধি ঘটে । ইতিহাস শিক্ষার্থী বিভিন্ন দেশের ইতিহাস থেকে জ্ঞান অর্জন করে মানব জাতির অগ্রগতিকে তরান্বিত করতে তা কাজে লাগায় । ইতিহাস বিভিন্ন দেশের সাথে বিভিন্ন দেশের সম্পর্কের গতিশীলতার প্রমান তুলে ধরে শিক্ষার্থীদের মনে আন্তর্জাতিকতাবাদের বিকাশ ঘটায় । যেমনঃ ভারতের স্বাধীনতা সংগ্রামে জার্মানি, রাশিয়া, জাপানের সক্রিয় সহযোগিতা ভারতীয়দের কাছে আজও প্রাসঙ্গিক ।

9. শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন মানসিক শক্তির উন্নয়নে ইতিহাস পাঠের গুরুত্ব কি ?
উঃ শিক্ষার্থীদের বিভিন্ন মানসিক শক্তির উন্নয়ন, যেমন – স্মৃতিশক্তির অনুশীলন, কল্পনাশক্তির বিকাশ, বিচার-বুদ্ধির উন্মেষ, অনুসন্ধিৎসা, যুক্তি শক্তির প্রয়োগ, বিশ্লেষণ ক্ষমতা ইত্যাদির যথাযথ অনুশীলনের সুযোগ সৃষ্টি করাও ইতিহাস শিক্ষণের অন্যতম মূল লক্ষ্য । ইতিহাস পাঠের মূল সুরটি হল জীবনের নৈতিক, সামাজিক, রাজনৈতিক ক্ষেত্রে বিচারবুদ্ধি প্রয়োগে দক্ষ হয়ে ওঠা । ইতিহাস পাঠের মাধ্যমে কোন ঘটনার কার্যকারন সম্পর্ক ও তার প্রভাব সম্পর্কে আলোচনাকালে শিক্ষার্থীকে সক্রিয়ভাবে তৎপর করে বিভিন্ন মানসিক শক্তির উন্নয়ন ঘটাতে সাহায্য করে ।

10. ইতিহাস পাঠ শিক্ষার্থীদের অগ্রগামী দৃষ্টিভঙ্গির বিকাশে কিভাবে সাহায্য করে ?
উঃ অগ্রগামী দৃষ্টিভঙ্গি মানব সভ্যতার উত্তরণের গতিপ্রকৃতি নির্ধারণ করে । ইতিহাসে হতাশার বা পরাজয়ের কোন স্থান নেই । বিজয়ী ও প্রগতিশীল ব্যক্তি, সভ্যতা বা দেশের ধারাবাহিক বিবরণই বারংবার ইতিহাসের পাতায় উঠে এসেছে । অর্থাৎ ইতিহাস পাঠ করলে শিক্ষার্থী জানতে পারে কিভাবে প্রতিকূল অবস্থার মধ্য দিয়েও সমস্ত বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে মানব ও তার সভ্যতা এগিয়ে চলেছে । শিক্ষার্থী যেকোনো পরিস্থিতিতে নিজেকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার প্রয়োজনীয়তা ও ক্ষমতা ইতিহাস পাঠের মাধ্যমে উপলব্ধি করতে পারে । ফলে তাদের মধ্যে অগ্রগামী দৃষ্টিভঙ্গির বিকাশ ঘটে । ভারতবর্ষে বিভিন্ন ঘাত-প্রতিঘাতের মাধ্যমে মুঘল সাম্রাজ্যের উত্থান, ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের উত্থান এবং স্বাধীন ভারতের অভ্যুত্থান অগ্রগামী দৃষ্টিভঙ্গির বিকাশের সুস্পষ্ট উদাহরণ ।

11. জাতীয়তাবাদী দৃষ্টিভঙ্গির বিকাশে ইতিহাস পাঠের ভূমিকা কি ?
উঃ জাতীয়তাবাদী দৃষ্টিভঙ্গির বিকাশ ইতিহাস পাঠের অন্যতম লক্ষ্য । বর্তমান স্বার্থমগ্ন সমাজ ব্যবস্থায় ইতিহাসই পারে স্বার্থ সিদ্ধির চিন্তাধারার মূলে কুঠারাঘাত করে জাতীয়তাবাদী দৃষ্টিভঙ্গির উন্মেষ ঘটাতে । ইতিহাসে জাতীয়তাবাদী দৃষ্টিভঙ্গি খুব একটা পুরাতন না হলেও এর গুরুত্ব অনেক । ভারতের স্বাধীনতার ইতিহাস পাঠ করলে দেখা যায় লক্ষ লক্ষ দেশ প্রেমি দেশের স্বাধীনতার জন্য জীবন বলী দিয়েছেন । তাদের একটাই স্বার্থ পরাধীন ভারত মায়ের স্বাধীনতা । বর্তমান সময়ে স্বার্থ চরিতার্থকারী রাজনীতি, দুর্নীতি, পরশ্রী কাতরতা ইত্যাদি থেকে আগামীতে দেশের মেরুদন্ডকে ঘুণ ধরা থেকে বাঁচাতে স্বাধীনতা সংগ্রামীদের ঐতিহাসিক কার্যাবলী সমন্ধে জ্ঞান প্রদান আবশ্যিক । তাদের কর্মপদ্ধতি, আত্মত্যাগ, বলিদান, দেশ ও জাতির প্রতি কর্তব্য ও আন্তরিকতা ইত্যাদি বিষয়গুলি ইতিহাসের পাতায় তুলে এনে শিক্ষার্থীদের তা সমন্ধে অবহিত করে জাতীয়তাবাদী দৃষ্টিভঙ্গি জাগরণ সম্ভব ।

 

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!