প্রযুক্তি ভিত্তিক শিক্ষাব্যবস্থা // Technology-Based Education

প্রযুক্তি ভিত্তিক শিক্ষাব্যবস্থা (Technology-Based Education)

~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~~

1) প্রযুক্তি ভিত্তিক শিক্ষাব্যবস্থা (Technology-Based Education) বলতে কি বোঝায় ?

উঃ যে ব্যবস্থার মাধ্যমে প্রযুক্তিকে ব্যবহার করে বিশেষ প্রয়োজনে বা গতানুগতিক পদ্ধতিতে শিক্ষার সুযোগ কে প্রতিফলিত করে বিভিন্ন প্রযুক্তিগত মাধ্যম দ্বারা শিক্ষাগ্রহণ করা সম্ভব হয় সেই ব্যবস্থাকে প্রযুক্তি ভিত্তিক শিক্ষাব্যবস্থা বলা যায় । বর্তমান শিক্ষা ব্যবস্থার একটি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হিসাবে প্রযুক্তিবিদ্যা বিশেষ ভূমিকা পালন করে চলেছে । উচ্চ শিক্ষা বা প্রতিযোগিতামূলক শিক্ষার ক্ষেত্রে প্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষা বিশেষ প্রয়োজনীয়তা রয়েছে ।

2) প্রযুক্তি ভিত্তিক শিক্ষাব্যবস্থার বৈশিষ্টগুলি কিকি ?
উঃ প্রযুক্তি ভিত্তিক শিক্ষাব্যবস্থার কয়েকটি বিশেষ বৈশিষ্ট হলঃ i. এই শিক্ষা ব্যবস্থা প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে বিশেষ প্রয়োজনে প্রদান করা হয় । ii. গতানুগতিক পদ্ধতিতে যেখানে বিশেষ শিক্ষাগ্রহণের সুযোগ কম বা সুযোগ থাকে না সে ক্ষেত্রে এরুপ ব্যবস্থা অধিক কার্যকর । iii. একই সঙ্গে সময় ও অর্থের সাশ্রয় করে যেকোনো পরিস্থিতি ও পরিবেশে এই শিক্ষাব্যবস্থার মাধ্যমে শিক্ষাগ্রহণ করা সম্ভব হয়ে থাকে । iv. এরুপ শিক্ষা ব্যবস্থা স্বল্প খরচে বা বিনা খরচে সম্পন্ন করা সম্ভব হয় । v. নিজের সুবিধামতো সময়ে কর্মক্ষেত্রে বা বাড়িতে অবসর সময়কে কাজে লাগিয়ে এরুপ শিক্ষাগ্রহণ সম্ভব হয় । vi. নিজের প্রয়োজন বা পছন্দ বিষয়ে জ্ঞান অর্জনের বিশেষ সুবিধা রয়েছে এরুপ ব্যবস্থায় । vii. বিশেষ কোন পরিক্ষা প্রস্তুতিতে, কোন বিষয় সম্পর্কিত বিশেষ জ্ঞান অর্জনে, সমসাময়িক শিক্ষার বর্তমান অবস্থান জানতে, সমসাময়িক ঘটনাবলী ও তার প্রেক্ষাপট সমন্ধে জ্ঞাননে এই ব্যবস্থা বিশেষ কার্যকর ।

3) প্রযুক্তি ভিত্তিক শিক্ষাব্যবস্থার উপাদানগুলো কিকি ?
উঃ প্রযুক্তি ভিত্তিক শিক্ষাব্যবস্থার উপাদানগুলো হলঃ i. E-Learning, ii. Web-Based Learning, iii. E-Library, iv. Website, v. Learning Apps, vi. Web 2.0 Technology ইত্যাদি ।

4) E-Learning বলতে কি বোঝায় ?
উঃ ইলেকট্রনিক প্রযুক্তি নির্ভর শিক্ষা ব্যবস্থা যেখানে প্রযুক্তির বিভিন্ন ডিজিটাল প্লাটফর্ম কে কাজে লাগিয়ে বিশেষ প্রয়োজনীয়তার ভিত্তিতে শিক্ষা অর্জন করা হয় তাকে E-Learning বলে । বর্তমান বিশ্বে এটি একটি জনপ্রিয় ও দ্রুত বর্ধিষ্ণু শিক্ষা ব্যবস্থা ।

5) “E-Learning” ধারণার প্রবর্তক কে ?
উঃ 1963 সালে আমেরিকান শিক্ষাবিদ Bernard J. Luskin প্রথম স্ট্যান্ডফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় এর অন্তর্গত একটি Community College এ নির্দেশ প্রদানের জন্য কম্পিউটার স্থাপনার মধ্য দিয়ে “E-Learning” ধারণার প্রবর্তন করেন ।

 

 

6) কোন সময় “E-Learning” শব্দটি প্রথম ব্যবহার হয় ?
উঃ 1999 সালের অক্টোবরে Los Angeles এ অনুষ্ঠিত CBT Systems Seminar এ সর্বপ্রথম “E-Learning” শব্দটি ব্যবহার হয় ।

7) বিশ্বের প্রথম সম্পূর্ণ দুর নিয়ন্ত্রিত (Remote Controlled) শিক্ষাব্যবস্থাযুক্ত মহাবিদ্যালয়টি কোথায় গড়ে ওঠে ?
উঃ 1976 সালে আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়ার Fountain Valley তে স্থাপিত Coastline Community College টি বিশ্বের প্রথম সম্পূর্ণ দুর নিয়ন্ত্রিত শিক্ষাব্যবস্থাযুক্ত মহাবিদ্যাল ।

8) “E-Learning” এর বৈশিষ্টগুলি কিকি ?
উঃ E-Learning এর বৈশিষ্টগুলি হলঃ i. এই শিখন পদ্ধতি প্রযুক্তিদ্বারা নিয়ন্ত্রিত । ii. এই ব্যবস্থার মাধ্যমে সহজেই নির্দিধায় বাড়িতে বসে শিক্ষা গ্রহণ সম্ভব । iii. সহজেই শিক্ষার্থীরা তাদের নিজস্ব জ্ঞান মূল্যায়ন করতে পারেন । iv. ই-লার্নিং পরিচালিত কোর্সগুলিকে ব্যবহার করে নিয়মিতভাবে নিজেকে আপডেট রাখা সম্ভব হয় । v. বিশেষ কোন শিক্ষার ক্ষেত্রে প্রচুর বই কেনার খরচ, প্রতিষ্ঠানে যাতায়ত খরচ ও সময় ইত্যাদি বাঁচিয়ে তথ্যপূর্ণ ম্যাটেরিয়ালস প্রাপ্তির সুযোগ থাকে এরুপ শিক্ষা ব্যবস্থায় ।

9) National Programme on Technology Enhanced Learning (NPTEL) প্রকল্পটি কখন আরম্ভ হয় ?
উঃ ভারত সরকারের MHRD দ্বারা 2003 সালে পরিকল্পনা টি আরম্ভ হয় । বর্তমানে ভারতের Bombay, Delhi, Kanpur, Kharagpur, Madras, Guwahati এবং Roorkee এই সাতটি বৃহৎ IIT প্রতিষ্ঠানে এই পরিকল্পনার মাধ্যমে শিক্ষা দেওয়া হয় ।

10) NPTEL কয়টি পদ্ধতিতে প্রশিক্ষণ দেয় ?
উঃ দুটি পদ্ধতিতে, যথাঃ Web Course এবং Video Lecture এর মাধ্যমে । এই প্রকল্পে 400 এর অধিক Web Course এবং 500 এর অধিক Video Lecture রয়েছে ।

 

#ধন্যবাদ

Spread the love
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

error: Content is protected !!